খুব শীঘ্রই রাজ্যে চালু হতে যাচ্ছে শিক্ষকদের বদলী নীতি

নিজস্ব প্রতিবেদন

আগরতলা, ফেব্রুয়ারি ১৫, : খুব শীঘ্রই রাজ্যে শিক্ষকদের জন্যে একটি বদলী নীতি চালু হতে যাচ্ছে।

রাজ্য শিক্ষা দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, দুর্গমতার নিরিখে গোটা রাজ্যকে চারটি জোনে ভাগ করে অনলাইন পদ্ধতিতে আগামী দিন থেকে যাবতীয় বদলীর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। ইতিমধ্যেই এমর্মে একটি খসড়া বদলী নীতি তৈরি করেছে রাজ্য শিক্ষা দপ্তর। এবং রাজ্য শিক্ষা সচিব হয়ে এক্ষণে সংশ্লিষ্ট বিষয়টি রাজ্য আইন দপ্তর ও রাজ্য সরকারের পারসোন্যাল এন্ড ট্রেনিং দপ্তরের ছাড়পত্রের অপেক্ষায় রয়েছে। এই দুই দপ্তরের ছাড়পত্র পেয়ে গেলে ফাইল যাবে রাজ্য মন্ত্রিসভায়। এবং চূড়ান্ত অনুমোদন হয়ে গেলে চালু হয়ে যাবে রাজ্য শিক্ষক বদলী নীতি-২০২০।

জানা গেছে, অতি দুর্গম এলাকা, ব্লক এলাকা, নগর পঞ্চায়েত ও পুর এলাকা এবং জেলা সদর, মহকুমা সদর ও রাজধানী শহরের স্কুলগুলিকে নিয়ে চারটি জোনে ভাগ করা হয়েছে রাজ্যের সব ক’টি স্কুলকে। চাকুরীর শুরুতেই ন্যুন্যতম দুই বছর অতি দুর্গম এলাকায় পোস্টিং দেওয়া হবে। যে যত বেশী দিন দুর্গম এলাকায় কাটাবেন সে তত বেশী পয়েন্ট বা মার্কস পাবেন। এবং পরবর্তী বদলীর ক্ষেত্রে যার যত বেশী মার্কস বা পয়েন্ট থাকবে তার পক্ষে অপেক্ষাকৃত ভাল জায়গায় বদলী বা পোস্টিং পেতে সুবিধা হবে। এই পদ্ধতি চালু হয়ে গেলে শিক্ষক শিক্ষিকাদের বদলীর জন্য আর মন্ত্রী বা নেতাদের বাড়ীতে ধর্না দিতে হবে না। বা কর্মচারী সংগঠন গুলির কোন ভূমিকা থাকবে না।

জানা গেছে, বামফ্রন্ট সরকারের সময়ও বহুবার এধরনের একটি সুষ্ঠু বদলী নীতি চালুর চেষ্টা হয়েছিল। সর্বশেষ পি কে চক্রবর্তী যখন শিক্ষা অধিকর্তা এবং রাজেশ্বর রাও যখন শিক্ষা দপ্তরের প্রধান সচিব, তখনও একবার এধরনের একটা বদলী নীতি চালুর চেষ্টা হয়। বিদ্যালয় শিক্ষামন্ত্রী তপন চক্রবর্তী নাকি রাজীও ছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কোন একটি অজ্ঞাত কারনে আর সেই বদলী নীতিটি চালু করা যায়নি।

জানা গেছে, নয়া বদলী নীতিটি চালুর আগে দপ্তর সমস্ত শিক্ষক কর্মচারীদের কে, কবে চাকুরী পেয়েছেন, কোথায় কতদিন চাকুরী করেছেন এসব তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। এবং নয়া বদলী নীতিটি চালু হলে শিক্ষকদের যাবতীয় তথ্য অনলাইনেও পাওয়া যাবে। কোন শিক্ষক কোন স্কুলে কতদিন ধরে চাকুরী করছেন তাও জানা যাবে। তাছাড়া বছর শেষে শিক্ষকরা অন লাইনেই তার পরবর্তী পোস্টিং এর জন্য আবেদন করতে পারবেন। বর্তমানে কেন্দ্রীয় মন্ত্রকের অফিসার কর্মচারীরা এমন কি আই এ এস, আই পি এস অফিসাররাও তাদের নির্দিষ্ট সময়কালের পর পরবর্তী পোস্টিং এর জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হয়। এবং যোগ্যতা অনুযায়ী পরবর্তী পোস্টিং পেয়ে যান। কোন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নেতার দ্বারস্থ হতে হয়না।

জানা গেছে, শিক্ষামন্ত্রী রতনলাল নাথ নিজেও চাইছেন খুব দ্রুত অনলাইন পদ্ধতিতে এই শিক্ষক বদলী নীতিটি এরাজ্যেও চালু হয়ে যাক। মন্ত্রী নিজেও এটা পছন্দ করছেন না কেউ বদলীর জন্যে তার অফিসে বা বাড়ীতে গিয়ে ভীড় করুন।


You can post your comments below  
নিচে আপনি আপনার মন্তব্য বাংলাতেও লিখতে পারেন।  
বিঃ দ্রঃ
আপনার মন্তব্য বা কমেন্ট ইংরেজি ও বাংলা উভয় ভাষাতেই লিখতে পারেন। বাংলায় কোন মন্তব্য লিখতে হলে কোন ইউনিকোড বাংলা ফন্টেই লিখতে হবে যেমন আমার বাংলা কিংবা অভ্রো কী-বোর্ড (Avro Keyboard)। আমার বাংলা কিংবা অভ্রো কী-বোর্ডের সাহায্যে মাক্রোসফট্ ওয়ার্ডে (Microsoft Word) টাইপ করে সেখান থেকে কপি করে কমেন্ট বা মন্তব্য বক্সে পেস্ট করতে পারেন। আপনার কম্পিউটারে আমার বাংলা কিংবা অভ্রো কী-বোর্ড বাংলা সফ্টওয়ার না থাকলে নিম্নে দেয়া লিঙ্কে (Link) ক্লিক করে ফ্রিতে ডাওনলোড করে নিতে পারেন।
 
Free Download Avro Keyboard  
Name *  
Email *  
Address  
Comments *  
 
 
Posted comments
Till now no approved comments is available.