বন এলাকার নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন, চলছে অবাধ কাঠ পাচার বানিজ্য

নিজস্ব প্রতিবেদন

আগরতলা, জুন ২১, : রাজ্যের বিজেপি-আইপিএফটি জোট সরকার প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন আগরতলাকে স্মার্ট সিটি, নেশা মুক্ত ত্রিপুরা, এবং গোটা রাজ্যটাকে সবুজায়নে ভরপুর করা হবে ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু একাংশ বন বিভাগের কর্মীদের খামখেয়ালিপনায় উজাড় হয়ে যাচ্ছে রাজ্যের বনজ সম্পদ । গোটা রাজ্যের সাথে পাল্লা দিয়ে উত্তর জেলার আসাম ত্রিপুরা সীমান্ত বনাঞ্চলে চলছে বনদস্যুদের অবাধ তাণ্ডব। আর হাত গুটিয়ে বসে আছেন চুড়াইবাড়ি ফরেস্ট অফিসের কর্মকর্তারা।

অভিযোগ তাদের নাকের ডগা দিয়ে প্রতিদিন প্রতিনিয়ত বনদস্যুরা বড় বড় গাছপালা কেটে নিয়ে যাচ্ছেন। বন উজাড় করে নিলেও তাদের কি যায় আসে? কারণ সপ্তাহিক প্রণামিটা তাে সময়মত এসব বন কর্মীদের পকেটের ঢুকছেই। প্রশ্ন উঠেছে তা না হলে কিভাবে বনদস্যুরা উজার করে দিচ্ছে বনজ সম্পদ? অবশ্য মাঝেমধ্যে চুড়াইবাড়ি বিট অফিসের কর্মকর্তারা দু-চারটি কাটা গাছ উদ্ধার করে আনতে সক্ষম হন শুধু লোক দেখানো এবং নিজেদের দায়িত্ব এবং কর্তব্য পালনের নামে।অথচ একজন বনদস্যুকেও আটক করতে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন বারবার। এ বিষয়ে চুরাইবাড়ি ফরেস্ট অফিসার লিটন দেবনাথ মুখ খুলতে নারাজ ।


You can post your comments below  
নিচে আপনি আপনার মন্তব্য বাংলাতেও লিখতে পারেন।  
বিঃ দ্রঃ
আপনার মন্তব্য বা কমেন্ট ইংরেজি ও বাংলা উভয় ভাষাতেই লিখতে পারেন। বাংলায় কোন মন্তব্য লিখতে হলে কোন ইউনিকোড বাংলা ফন্টেই লিখতে হবে যেমন আমার বাংলা কিংবা অভ্রো কী-বোর্ড (Avro Keyboard)। আমার বাংলা কিংবা অভ্রো কী-বোর্ডের সাহায্যে মাক্রোসফট্ ওয়ার্ডে (Microsoft Word) টাইপ করে সেখান থেকে কপি করে কমেন্ট বা মন্তব্য বক্সে পেস্ট করতে পারেন। আপনার কম্পিউটারে আমার বাংলা কিংবা অভ্রো কী-বোর্ড বাংলা সফ্টওয়ার না থাকলে নিম্নে দেয়া লিঙ্কে (Link) ক্লিক করে ফ্রিতে ডাওনলোড করে নিতে পারেন।
 
Free Download Avro Keyboard  
Name *  
Email *  
Address  
Comments *  
 
 
Posted comments
Till now no approved comments is available.