দুই বিজেপি বিধায়কের উপস্থিতিতে ডেপুটেশন কালে উত্তপ্ত পরিস্থিতি, আগরতলা পুর পরিষদের কমিশনারের বিরুদ্ধে থানায় এফ আই আর

নিজস্ব প্রতিবেদন

আগরতলা, মার্চ ৫, : আগরতলা পুর পরিষদের কমিশনার শৈলেশ কুমার যাদব- এর বিরুদ্ধে মহারাজগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির এক কর্মকর্তা চন্দন নাহা তাকে প্রান নাশের হুমকী দিয়েছেন অভিযোগ করে শ্রী যাদব-এর বিরুদ্ধে পশ্চিম থানায় এফ আই আর করেছেন। এফ আই আর-এ শ্রী নাহা অভিযোগ করেছেন যে, আগরতলা পুর পরিষদের কমিশনার গতকাল দুপুরে পুর পরিষদের মেয়র শ্রী প্রফুল্লজীৎ সিনহার উপস্থিতিতে একটি ডেপুটেশন চলাকালীন তাকে গুলী করে হত্যার হুমকী দিয়েছেন। এবং তার সাথে অসভ্য আচরন করেন। বড়দোয়ালী ও সূর্যমনিনগর বিধানসভা কেন্দ্রের দুই বিধায়ক যথাক্রমে আশিস সাহা ও রামপ্রসাদ পালও তখন সেখানে ছিলেন।

মহারাজগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ীদের কিছু সমস্যা নিয়ে ব্যবসায়ীদের একটি প্রতিনিধি দল দুই বিধায়ককে সঙ্গে নিয়ে পুর পরিষদের মেয়র শ্রী প্রফুল্লজীৎ সিনহার সাথে ডেপুটেশন দিতে গিয়েছিলেন। সে সময় পুর পরিষদের কমিশনার শ্রী যাদব হঠাৎ করে উত্তেজিত হয়ে উঠেন বলে তারা অভিযোগ করেন।

যতদূর খরব, মহারাজগঞ্জ বাজার এলাকার কিছু ব্যবসায়ীকে উচ্ছেদ নিয়ে হাইকোর্টের একটি নির্দেশ ছিল। পুর কমিশনার ডেপুটেশনকালে হাইকোর্টে যেহেতু মামলা চলছে তাই এব্যপারে কোন কথা বলতে অস্বীকার করেন। আর বাক-বিতন্ডা শুরু সেখান থেকেই।

মহারাজগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক চন্দন নাহার অভিযোগ ডেপুটেশন চলাকালীন পুর কমিশনার শ্রী যাদব যে ভাষায় তাকে হুমকী দিয়েছেন এতে তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। তাছাড়া পুর কমিশনার দুই বিধায়কের সঙ্গেও খারাপ ব্যবহার করেছেন বলে দুই বিধায়কও মিডিয়ার সামনে অভিযোগ জানান। গোটা বিষয়টি সম্পর্কে আগরতলা পুর পরিষদের মেয়র প্রফুল্লজীৎ সিনহা মিডিয়ার সামনে অনভিপ্রেত ও দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেন। কিন্তু গোটা বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক মহলে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। আই এ এস অফিসার মহলে কথা উঠেছে একজন মেয়র-এর সামনে বিজেপি-র দুই বিধায়ক এর উপস্থিতিতে ডেপুটেশনকালে যে ভাষার ব্যবহার হয়েছে তা অনভিপ্রেত। শৈলেশ যাদব এর দাবী, তিনি কোন পর্যায়েই বিধায়কদের কিংবা ডেপুটেশনে উপস্থিত কারোর প্রতি অন্যায় আচরন করেন নি। কিন্তু শ্রী যাদব যেভাবে ডেপুটেশন গ্রহণ না করে মেয়র এর কক্ষ ত্যাগ করেন এটা শোভনীয় ছিলনা বলে বিজেপি-র দুই বিধায়কের অভিযোগ।

পক্ষান্তরে ডেপুটেশনকারীদের অভিযোগ পুর কমিশনার প্রচন্ড অসৌজন্যমূলক আচরন করেন। ডেপুটেশনকারীদের তিনি পুলিশ ডেকে ঘর থেকে বের করে দেওয়ার হুমকী দেন। তাই শ্রী নাহা আইনের দ্বারস্থ হয়েছেন। এবং গতকাল রাতেই পশ্চিম থানায় এফ আই আর দায়ের করেন। পশ্চিম থানার ওসি সুব্রত চক্রবর্তী এফ আই আর গ্রহনের কথা স্বীকার করেছেন। গোটা বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট মহলে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। জানা গেছে, ৪ মার্চ দুপুরে সংগঠিত এই ঘটনার পর পুর কমিশনার গোটা বিষয়টি নগর উন্নয়ন দপ্তরের সচিবকে জানিয়েছেন। নগর উন্নয়ন দপ্তরের সচিব শ্রী কীরন গিতে বিষয়টি নগর উন্নয়ন মন্ত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রীকে নাকি জানিয়েছেন। এখন পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রী এবিষয়ে মিডিয়ার কাছে কোন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন নি। তবে একটি বিশ্বস্ত সূত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী মুখ্যমন্ত্রী শ্রী বিপ্লব দেব নাকি সংশ্লিষ্ট এক প্রশাসনিক আধিকারিককে বলেছেন, অফিসার অফিসারের কাজ করবে। আর তা আইন মেনে করা হলে ভয়ের কিছু নেই।


You can post your comments below  
নিচে আপনি আপনার মন্তব্য বাংলাতেও লিখতে পারেন।  
বিঃ দ্রঃ
আপনার মন্তব্য বা কমেন্ট ইংরেজি ও বাংলা উভয় ভাষাতেই লিখতে পারেন। বাংলায় কোন মন্তব্য লিখতে হলে কোন ইউনিকোড বাংলা ফন্টেই লিখতে হবে যেমন আমার বাংলা কিংবা অভ্রো কী-বোর্ড (Avro Keyboard)। আমার বাংলা কিংবা অভ্রো কী-বোর্ডের সাহায্যে মাক্রোসফট্ ওয়ার্ডে (Microsoft Word) টাইপ করে সেখান থেকে কপি করে কমেন্ট বা মন্তব্য বক্সে পেস্ট করতে পারেন। আপনার কম্পিউটারে আমার বাংলা কিংবা অভ্রো কী-বোর্ড বাংলা সফ্টওয়ার না থাকলে নিম্নে দেয়া লিঙ্কে (Link) ক্লিক করে ফ্রিতে ডাওনলোড করে নিতে পারেন।
 
Free Download Avro Keyboard  
Name *  
Email *  
Address  
Comments *  
 
 
Posted comments
Posted OnNameEmailComment
05.03.2020Subash Das[email protected]This Person (Commissioner) always creates controversies in past also, Left Govt. always try to hide his mistakes.1 He beaten a villager for being Carrie wooden from a saw mill while he was a SDM Mohanpur, there after while he was in NHM, enjoying park visit with District Chief Medical Officer (Lady) and againg Now.........